বিতর্ক

বিতর্ক

12

September, 2018

Admission Test 2018

University of Rajshahi

বিতর্ক

বিতর্ক একটি ভালােবাসার নাম। স্কুল-কলেজের গণ্ডি পেরিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় জীবনের শুরুতে এসে আমার বিতর্ক চর্চার শুরু। প্রথমদিকে নিজের আত্মবিশ্বাসের অভাব, কথা বলার জড়তা এবং পাব্লিক স্পিকিং এর ভীতি কাটানাের জন্যই মূলত বিতর্ক চর্চার শুরু। পরবর্তীতে বিতর্কের প্রতি ভালােলাগা এবং ভালােবাসা জন্মে যায়। এখান থেকে শুধু আত্মবিশ্বাসই পাইনি, বাড়াতে পেরেছি নিজের কমিউনিকেশন স্কিল। বাংলাদেশে বেশিরভাগ স্কুল কলেজগুলােতেই বিতর্ক সংগঠন রয়েছে। প্রায় সকল বিশ্ববিদ্যালয়েই বিতর্ক সংগঠনগুলােতে নিয়মিত বিতর্ক চর্চা হয়। একই সাথে আয়ােজিত হয় বিভিন্ন জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক বিতর্ক প্রতিযােগিতা। চাইলে খুব সহজেই এসকল বিতর্ক সংগঠনের সদস্য হয়ে নিজেকে একজন বিতার্কিক হিসেবে তৈরী করা সম্ভব। দরকার শুধু নিজের ইচ্ছা, আগ্রহ এবং চেষ্টা।। বিতর্ক একটি যুক্তিভিত্তিক চর্চা। যার যুক্তি যতাে ভালাে, সে ততাে সফল বিতার্কিক। বিতর্কের মাধ্যমে যুক্তিচর্চা এবং মুক্তবুদ্ধির চর্চা হয়, মানসিকতার বিকাশ ঘটে, মনের সংকীর্ণতা দূর হয়। দিনশেষে বিতর্ক একজন সচেতন নাগরিক এবং সচেতন মানুষ হিসেবে গড়ে তােলে। এছাড়া বিতর্ক পারস্পরিক সম্পর্কের উন্নতি ঘটায়। বিভিন্ন জাতীয় টুর্নামেন্টগুলােতে অংশ নিতে গিয়ে বেশ কিছু নতুন বন্ধুত্ব তৈরী হয়। বিতর্ক এবং বিতার্কিকের সম্পর্ক সবসময়ই ভালােবাসার। একজন বিতার্কিক যেমন বিতর্ক ভালােবাসে, ঠিক তেমনি বিতর্কও বিতার্কিকদের ভালােবাসে। বিতর্ক কখনাে বিতার্কিককে খালি হাতে ফেরায় না। বিতর্ক শুধু জিতেই নয়, বিতর্ক হেরে গিয়েও অনেক কিছু শেখা যায়, অভিজ্ঞতা সঞ্চার হয়। মােটকথা ভালাে বিতার্কিক হতে চাইলে প্রচুর প্র্যাক্টিস করতে হবে এবং প্রচুর বই পড়তে হবে। আশেপাশের পৃথিবী সম্পর্কে জানতে হবে। বাংলাদেশে বসে আমেরিকার রাজনীতি সম্পর্কে যেমন জানতে হবে, তেমনই জানতে হবে মধ্যপ্রাচ্যের অর্থনীতি সম্পর্কে। সাহিত্য সম্পর্কেও জ্ঞান থাকা চাই। তবে ভাববেন না আপনাকে একবারে সব জানতে, পড়তে হবে বা বাকিরা সবাই সব জানে। ধীরে ধীরে নিজের জ্ঞানের পরিধি বাড়াতে হবে। বই পড়ার অভ্যাস বাড়াতে হবে। এছাড়া দেখতে পারেন ইউটিউবের বিভিন্ন শিক্ষামূলক চ্যানেল। দিনশেষে বিতর্ক থেকে কিছু পেতে চাইলে বিতর্ক ভালােবাসতে হবে, বিতর্কের সাথে লেগে থাকতে হবে।

Want new articles before they get published?
Subscribe to our Awesome Newsletter.

পড়া মনে রাখার কৌশল

অাপনাদের সকলেরই একটা কমন অভিযোগ থাকে তাহলো “পড়লে মনে থাকে না। এতো পড়ি কিন্তু মনে রাখতে পারি না।”হ্যা এটা ঠিক যে পড়া ১০০% মুখস্ত করা ঠিক না।বরং বুঝে পড়তে হয়।তবুও কিছু জিনিস অাপনাদের মনে রাখা লাগবেই।তাই অাজ তোমাদের সামনে অালোচনা করবো এমন কিছু কৌশল যা অাপনাকে পড়া মনে রাখতে সাহায্য করবে।

১।নিচু স্বরে পড়া

গবেষণায় দেখা গেছে, উচ্চস্বরে পড়া অপেক্ষা নিচু স্বরে পড়লে সেটা মনের ভিতর সহজে গেথে যায়।কোনো কিছু সহজে বোঝার জন্য মৌন পাঠই ভালো।তবে ব্যক্তি বিশেষে এটা ভিন্ন রকম হতে পারে।

২।প্রধান টপিকসগুলো চিহ্নিত করা

একটা পাঠের ভিতর সব কিছু সমান গুরুত্বপুর্ণ নয়।কিছু লাইন থাকে তুলনামূলক বেশি গুরুত্বপুর্ণ।সেগুলো অাগে খুজে বের করে চিহ্নিত করতে হবে।তাহলে অাপনার পাঠটা সহজ এবং কম হয়ে যাবে।ফলে মনে ধরে রাখতে পারবে খুব সহজেই।

৩।অনুমান

পাঠের ভিতর একটা লাইনের পর অারেকটা লাইন কি হবে এটা অনুমান করতে পারলে তুমি অল্প পড়েই সহজেই একটা পাঠ মনে রাখতে পারবে।অাপনার কষ্টটাও অনেক কম হবে।

৪।লিখে লিখে পড়া

একবার লেখা ৫বার পড়ার সমান।তাই অাপনাকে অবশ্যই পাঠগুলো লিখতে হবে।পড়ার পাশাপাশি লিখলে সেটা ২গুণ বেশি কাজে দেবে।তোমার মেমরি সহজে এটা ধরতে পারবে।অনেক সময় ছবিও অাঁকতে পারো।

৫।সময় নির্বাচন

সারা দিনরাত পড়লেই সেটা কাজে লাগে না।এর জন্য একটা নির্দিষ্ট সময় নির্বাচন করতে হয়।কিছু গবেষণায় দেখা গেছে, বিকালের পর আমাদের ব্রেইনের কার্যকারিতা বৃদ্ধি পেতে থাকে। তাই বিকালের পরে অর্থাৎ সন্ধ্যায় বা রাতে পড়া বেশি কার্যকর হয়।তবে এটা ব্যক্তি বিশেষে বিভিন্ন রকম হতে পারে।

৬।অন্যকে শেখানো

অন্যকে শেখানো অাপনার পড়া মনে রাখার জন্য অনেক বড় একটা টেকনিক। অনেকে ভাবে যে কেওকে শেখালো অামার ক্ষতি হবে।কিন্তু এটা ১০০% ভুল।বরং এটা অাপনার জন্যই মঙ্গল।

বিন্দু থেকে সিন্ধু

ইচ্ছার কাছে কোন কিছু অসম্ভব নয়। তাই প্রবল আগ্রহকে শ্রেষ্ঠ্যত্বের জনক বলা হয়। ইচ্ছাটাকে লালন করেই আমাদের সিদ্ধান্ত নিতে হবে আমি কি হতে চাই। যদি জীবনের উদ্দেশ্য থাকে তাহলে উদ্দেশ্য সিদ্ধির আবেগও থাকবে। তাই জীবন যুদ্ধে প্রথমে উদ্দেশ্য স্থির করুন, তারপর আবেগ ও অধ্যবসার নিয়ে লক্ষ্যের পথে অগ্রসর হন।

আপনি আপনার সফলতার জন্য কি করবেন, কি হবেন সে সিদ্ধান্ত আপনার। হতে পারেন উদ্যোক্তা, শিক্ষক, ডাক্তার, ইন্জ্ঞিনিয়ার ইত্যাদি। কিন্তু একজন উদ্যোক্তার কাছে এসব কিছুই না। মনে করেন আপনি একজন শিক্ষক হলেন, শিক্ষক হয়ে শত শত ছাত্রছাত্রীদের শিক্ষা দান করালেন কিন্তু আপনি যদি একজন উদ্যোক্তা হন এবং স্কুল প্রতিষ্ঠান করেন তাহলে সেখানে হাজার হাজার ছাত্রছাত্রীদের শিক্ষা গ্রহনের ব্যবস্থা করে দিতে পারবেন। একটি দেশে যতবেশি উদ্যোক্তা তৈরী হবে সে জাতি তত তাড়াতাড়ি উন্নয়ন লাভ করতে পারবে। আগামী দিনে এই উদ্যোক্তারাই বিশ্ব পরিবর্তনে নেতৃত্ব দিবে তাতে কোন সন্দেহ নেই। কারন তারা শুধু নিজে কাজ করে না, অনেক লোকের কাজের সুযোগ করে দেয়। তাদের শ্লোগান হল,” চাকরি করব না, চাকরি দিব”।ইচ্ছা করলেই ত আর উদ্যোক্তা হওয়া যায় না, যার জন্য প্রয়োজন কিছু বৈশিষ্ট্য। তার মধ্যে ৫ টি খুবই গুরুত্বপূর্ণ—

১) স্বপ্নের সঙ্গে হাটুঁন:

আপনি কখনই সফল হতে পারবেন না, যদি আপনি আপনার কাজকে না ভালোবাসেন।ধনকুবের ওয়াবেন বাফেট বলেন,” যে কোন কাজে সফল হতে হলে সেই কাজের প্রতি আসক্তি বা ভালোবাসা থাকতে হবে। অল্প আগুন যেমন অনেক উওাপ দিতে পারে না, তেমনি দুর্বল ইচ্ছাশক্তি কখনও সফলতা এনে দিতে পারে না।

২) সৃজনশীলতা বাড়ানো :

আপনি কত দ্রুত সফল হবেন তা নির্ভর করে আপনার কাজের সৃজনশীলতার উপর।একটি কাজ তখনই সবার মাঝে গ্রহন যোগ্য, অন্যদের থেকে আলাদা হবে যখন সেই কাজের মাঝে সৃজনশীলতা থাকবে। তাই একজন সফল উদ্যোক্তা হওয়ার জন্য আপনাকে অবশ্যই আপনার কাজে সৃজনশীলতা নিয়ে আসতে হবে।

৩) ঝুঁকি নিন :

একজন উদ্যোক্তাকে জীবনে সফল হতে চাইলে তাকে অবশ্যই ঝুঁকি নিতে হবে। তবে কখনও জোয়া খেলার মত ঝুঁকি নেওয়া যাবে না। ঝুঁকি নেওয়ার সময় অবশ্যই আপনাকে সে বিষয়ে উপযুক্ত প্রশিক্ষণ, জ্ঞান, অর্জন, নিজের আত্মবিশ্বাস ও যোগ্যতা তৈরী করতে হবে। ঝুঁকি যদি না নেন, তাহলে মনে রাখবেন, আজ আপনি যা আছেন দশ বছর পরও তাই থাকবেন।

৪) হতাশ না হওয়া :

নতুন যে কোন কাজের ক্ষেত্রেই এমন কিছু মুহূর্ত আসে, যা আপনাকে হতাশ করে দিতে পারে। ব্যর্থতার ভয় ব্যর্থতার থেকেও আরও খারাপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করে। অবশ্যই মনে রাখতে হবে যে, ব্যক্তি জীবনে যে কখনও ব্যর্থতার স্বাদ পায়নি, সে কখনও সফল ব্যক্তি হতে পারে না। ব্যর্থতা ছাড়া সফল হয়েছে এমন ব্যক্তি খুঁজে পাওয়া খুবই কষ্টকর। অল্প পরিশ্রমের ভালোবাসা যেমন বেশীদিন টিকে না তেমনি ব্যর্থতা ছাড়া সেই সফলতাও বেশি দিন টিকবে না।

৫) আস্থা রাখুন:

আপনি যদি আপনার কাজের উপর আপনি বিশ্বাস রাখতে না পারেন, তা হলে অন্য জন কিভাবে রাখবে? যাদের দৃঢ় বিশ্বাসের অভাব আছে তারা হচ্ছে মধ্যমপন্থী। আর যারা মাঝ রাস্তা দিয়ে হাটে তাদের কি হয়? গাড়ির চাপা পড়ে।

What To Do on Weekend To Be More Productive All Week

For most of us it is not so easy to catch up with the work after the weekly holidays which actually ends with the fun and freedom.

Even though someone loves his job, the angst of having to go back on regular work routine can make someone disorganized and put into trouble the whole day.It is explained by Richard Citrin, Ph.D., MBA, an organizational and consulting psychologist and author of “The Resilience Advantage.” And then one needs to spend the rest of the week playing catch up.

The work week will start whether someone like it or not. The adaption of some smart habits on the weekend days will set up one for a brighter, more efficient work week without really cutting into weekend rest and recreation time.

Here are some Tips and Tricks

Steal an Hour to Get Organized

Watching TV or a sports marathon ? Besides organizing the TODO things in the calendar app in your mobile or tablet.Trust me ,it will pay off. “Taking no more than an hour out from your Sunday to anticipate the week ahead and get organized will help you free up head space and reduce worry,” says Christine M. Allen, Ph.D., a psychologist, executive and coach. Use the calendar app,the emails and a notepad to make to-do list prioritizing the tasks which should be done first as the day starts.Rather than keeping the annoying chores for the last minute it should be done earlier on the weekend day. The load of laundry,the next week’s meal even deciding the work cloths all these help out someone to save times and coast through of the rest weekend.


Fill Your Plate With Healthy Food

Consuming rich, heavy food and alcohol on Sunday will sink you into a food coma that can leave you lethargic on Monday morning, explains Debra Nessel, RDN, CDE, a registered dietitian with Torrance Memorial Medical Center in Torrance, California.So,even it is the weekend you should maintain a proper diet.It is a combinations of three things which are delicious and each containing lean protein and complex carbs, delicious meals on Sunday and lots of high-fiber fruits and vegetables to aid digestion and leave you feeling full.alcohol is dehydrating which brings mental fog and sluggishness that intensifies stress .So in spite of having the cocktails fill your glass with plenty water.


Add Meaning to the Day

There would be no judgement if someone prefer spending sunday afternoon watching “Game of Thrones.” However the monday would be more energetic if someone pass the sunday doing something which is personally fulfilling-like going on nature hike or walking shelter dogs.Also you can plan a yoga session with friends or volunteering the community .These lends meaning to that day and resets one’s mental and spiritual batteries which makes more accomplished and inspired.


Concentrate on the Positive

A monday can be dreading because of a rough commute or crabby coworkers. Do not focus on these negative things .Instead,focus on something positive that may happen when you come to office . It can be that you have crack a new deal with a fresh idea or atleast get caught up on weekend gossip.Sometimes it happens that one does not likes his works these days.Then he should spend some time thinking what could help to enjoy the work more.Try recalling those days when you looked forward to your job and all the hard work it took to move up in your career. Ask yourself questions what is the reason that changed to this feeling.In the mean time also focus on the good thing of the job such as the salary, the occasional chance to travel or the officemates who never fail to crack you up.





Have Some Old-School Fun

You can play the old school days games ,invite friends and pull out the monopoly boards or poker or suggest a game of H-O-R-S-E with your kids. The founder of RegainYourTime.com and author of “Personal Productivity Secrets ,Maura Thomas explains,“Games, hobbies and creative activities stimulate creative thinking, encourage single-tasking, clear your mind and improve your confidence”. A study published in Research in Organizational Behavior also says that Playing computer games, sports and other activities that promote fun are also linked to improved creativity.And these are the qualities that makes you feeling fresh on the day of work.These are not the works on the weekend but by these fun activities different parts of the brain stays active.




Set Yourself Up for Quality Sleep

Maybe it is your weekend so you would love to spend the whole night watching movie or chilling with friends .However a good night sleep is really necessary for a perfect starts on monday. It helps handles stress, puts more optimistic and energized.To prep for the shuteye you need on Sunday, try eating healthy, not-heavy meals and finishing your last meal two-and-a-half hours before you plan on turning in so the digestive process is underway, says Michael Breus, Ph.D., a sleep specialist and author of “The Power of When.” And others tips include getting involved in decent physical activity which will help improving sleep quality.