12

September, 2018

University Review

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (সংক্ষেপে চবি ) চট্টগ্রামে অবস্থিত বাংলাদেশের একটি সরকারি বহুঅনুষদভিত্তিক গবেষণা বিশ্ববিদ্যালয় । এটি ১৯৬৬ সালে চট্টগ্রাম জেলার হাটহাজারী উপজেলায় স্থাপিত হয়। এটি দেশের তৃতীয় এবং ক্যাম্পাস আয়তনের দিক থেকে দেশের সর্ববৃহৎ বিশ্ববিদ্যালয়। এখানে প্রায় ২২,০০০ শিক্ষার্থী এবং ৬৮৭ জন শিক্ষক রয়েছেন৷

বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জনের পূর্বে এই বিশ্ববিদ্যালয় তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের প্রগতিশীল ও গণতান্ত্রিক আন্দোলনের কেন্দ্রবিন্দু হয়ে উঠেছিল। সে সময়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা বাঙালি জাতীয়তাবাদের উত্থান এবং বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জনে কেন্দ্রীয় ভূমিকা পালন করেছিলেন।

বর্তমানে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিনে ২১টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান অর্ন্তভূক্ত রয়েছে। [] চট্টগ্রামের পাহাড়ি এলাকায় অবস্থিত বিশ্ববিদ্যালয়টি প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের আধার। এখানে রয়েছে চট্টগ্রামের সর্ববৃহত

এই বিশ্ববিদ্যালয়ে অনেক উল্লেখযোগ্য প্রাক্তন শিক্ষকশিক্ষার্থী শিক্ষাগ্রহণ ও অধ্যাপনা করেছেন যার মধ্যে ১ জননোবেল বিজয়ী এবং একাধিক একুশে পদক বিজয়ী অর্ন্তভূক্ত রয়েছেন। বিশ্বের অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের রাঙ্কিং ৪৬৮২ তম এবং দেশের অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে এর রাঙ্কিংক অবস্থান ১৪ তম। যদিও ১৯৯০এর দশক থেকে এই বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশের রাজনৈতিক দলগুলোর দ্বারা প্রগাঢ়ভাবে রাজনৈতিক দলীয় ও সহিংস শিক্ষাঙ্গন রাজনীতির কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রাম শহর থেকে প্রায় ২২ কিলোমিটার উত্তরে হাটহাজারী থানার ফতেহপুর ইউনিয়নের জঙ্গল পশ্চিমপট্টি মৌজার ২১০০ একর পাহাড়ি এবং সমতল ভূমির উপর অবস্থিত।

১৯৬৬ সালের ১৮ নভেম্বর আনুষ্ঠানিকভাবে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের যাত্রা শুরু হয়।

#

বিশ্ববিদ্যালয় জাদুঘর

১৯৭৩ সালের ১৪ জুন, মধ্যযুগের চারটি কামান নিয়ে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় জাদুঘরের কার্যক্রম শুরু হয়। বর্তমানে এ জাদুঘরে বেলে পাথরের একাধিক ভাস্কর্যসহ বেশকিছু প্রাচীন পাথরের ভাস্কর্য এবং একটি কামান রয়েছে। জাদুঘর ভবনটি পাঁচটি গ্যালারিতে বিভক্ত। যেখানে রয়েছে: সমসাময়িক আর্ট গ্যালারি, প্রাগৈতিহাসিক এবং প্রত্নতাত্ত্বিক আর্ট গ্যালারি, ভাস্কর্য গ্যালারি, লোকশিল্প গ্যালারি এবং ইসলামিক আর্ট গ্যালারি।

জাদুঘরের মূল কক্ষের প্রবেশ পথে রয়েছে দ্বাদশ শতকের একটি প্রাচীন শিলালিপি। এখানে অষ্টম শতকের

পাহাড়পুর থেকে প্রাপ্ত পোড়ামাটির চিত্রফলক, বৌদ্ধমূর্তি, মধ্যযুগের ১০১৫টি বিষ্ণুমূর্তি, সৈন্যদের ব্যবহৃত অস্ত্রশস্ত্র, বিভিন্ন রকম মুদ্রা , প্রাচীন বই, বাদ্যযন্ত্র, আদবিাসীদের বিভিন্ন নিদর্শন, চিনামাটির পাত্র ইত্যাদি সংরক্ষিত রয়েছে। সমসাময়িক আর্ট গ্যালারিতে শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদীন, কামরুল হাসান, রশিদ চৌধুরী, জিয়া উদ্দীন চৌধুরী, নিতুন কুন্ডু চৌধুরীর পেইন্টিংস এবং সৈয়দ আব্দুল্লাহ খালিদের ভাস্কর্য রয়েছে। প্রাগৈতিহাসিক এবং প্রত্নতাত্ত্বিক আর্ট গ্যালারিতে প্রাচীনকালের চিত্রকর্ম, জীবাশ্ম, মাটির মূর্তি রয়েছে। ভাস্কর্য গ্যালারিতে রয়েছে অষ্টম থেকে দ্বাদশ শতাব্দী পর্যন্ত সময়কালের কাঠের মূর্তি, বিষ্ণুমূর্তি, শিবলিঙ্গ প্রভৃতী। লোকশিল্প গ্যালারিতে সপ্তদশ ও অষ্টাদশ শতকের তামা, পিতল ও অ্যালুমিনিয়ামের তৈজসপত্র, বেতের ঝুড়ি, মাটির ভাস্কর্য, মাটির পুতুল প্রভৃতির বিশাল সম্ভার রয়েছে। ইসলামিক আর্ট গ্যালারিতে রয়েছে মোগল আমলের কামান, স্বর্ণ ও রৌপ্য মুদ্রা, হস্তলিখিত কুরআন, মধ্যযুগীয় অস্ত্র, প্রাচীন মসজিদের ও তাদের ধ্বংসাবশেষের ছবি।জাদুঘরটি সকল খোলার দিনে দর্শকদের জন্য উম্মুক্ত থাকে।

#প্রাণিবিদ্যা জাদুঘর

এটি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে অবস্থিত। ১৯৭৩ সালে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের পাঠক্রমের সমর্থনে একটি সহায়ক প্রতিষ্ঠান হিসেবে এ যাদুঘরটি স্থাপিত হয়। এই জাদুঘরে প্রায় ৫৪০টি নমুনা সংরক্ষিত রয়েছে। এর মধ্যে প্রাণীর সংখ্যা ৫৭টি এবং ফরমালিন (ভেজা সংরক্ষিত) নমুনার সংখ্যা ৪৮৫ টি। [১৪]

সমুদ্র সম্পদ জাদুঘর

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়েরই সামুদ্রিক বিজ্ঞান ইন্সটিটিউটের একটি রুমে গড়ে তোলা হয়েছে এ যাদুঘর। এখানে ৫৫০টির মতো সামুদ্রিক প্রাণী সংরক্ষণ করা হয়েছে। হাঙ্গর থেকে শুরু করে বৈদ্যূতিক মাছ, আজব বাণাকেল, অক্টোপাস, শামুক, সাপ সহ রয়েছে অসংখ্য বিস্ময়কর জীব বৈচিত্র। [১৪]

#স্মৃতিস্তম্ভ ও ভাস্কর্য:-

১।স্মরণ স্মৃতিস্তম্ভ

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রবেশ পথেই ভাস্কর্যটির অবস্থান। স্মৃতিস্তম্ভটির স্থপতি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা বিভাগের অধ্যাপক সৈয়দ সাইফুল কবীর। ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের চট্টগ্রামে বিশ্ববিদ্যালয়ের ১ জন শিক্ষক, ১১ জন ছাত্র এবং ৩ জন কর্মকর্তা ও কর্মচারী সহ সর্বমোট ১৫ জন মুক্তিযোদ্ধার আত্মত্যাগ আর বীরত্বের স্মৃতিস্বরূপ ভাস্কর্যটি নির্মিত হয়েছে। ভূমি থেকে স্মরণের মূল বেদি পর্যন্ত সর্বমোট চারটি ধাপ যার প্রতিটি ধাপ বাংলাদেশের ইতিহাসের সাক্ষ্য বহন করে চলেছে। প্রথম ধাপ বায়ান্নের ভাষা আন্দোলন, দ্বিতীয় ধাপ ঊনসত্তরের গণঅভ্যুত্থান, তৃতীয় ধাপ সত্তরের নির্বাচন ও চতুর্থ ধাপে প্রতিফলিত হয়েছে একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের চেতনা।স্মৃতিস্তম্ভে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সাতজন মুক্তিযোদ্ধার নাম ও ছবি রয়েছে, তারা হলেনপ্রকৌশল দপ্তরের চেইন ম্যান বীর প্রতীক মোহাম্মদ হোসেন, চাকসুর জিএস আব্দুর রব, শিক্ষার্থী ইফতেখার উদ্দিন মাহমুদ, ফরহাদউদদৌলা, নাজিম উদ্দিন খান, উপসহকারী প্রকৌশলী প্রভাষ কুমার বড়ুয়া এবং প্রহরী সৈয়দ আহমদ।

২।বুদ্ধিজীবী স্মৃতিস্তম্ভ

বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মিনারের বিপরীত পাশে বুদ্ধিজীবী স্মৃতিস্তম্ভ অবস্থিত। বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে নিহত বুদ্ধিজীবীদের স্মরণে ভাষ্কর্যটি স্থাপন করা হয়। স্তম্ভটির অবস্থান বুদ্ধিজীবী চত্বর নামে পরিচিত। প্রথিতযশা শিল্পী রশিদ চৌধুরী এর নকশা প্রণয়ন করেন। ১৯৮৫ সালে স্থাপিত এ স্মৃতিস্তম্ভটি এখন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সৃজনশীল কর্মের সূতিকাগার হিসাবে ভাবা হচ্ছে। [১৫][১৬]

#কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার

বুদ্ধিজীবী স্মৃতিস্তম্ভের বিপরীত পাশে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার অবস্থিত। এটি ১৯৯৩ সালে স্থাপন করা হয়।

#স্বাধীনতা স্মৃতি ম্যুরাল

বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা অনুষদের সামনে ভাস্কর্যটির অবস্থান। খ্যাতিমান শিল্পী ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা বিভাগের শিক্ষক মুর্তজা বশীরের একক প্রচেষ্টায় এটি নির্মিত হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা ইনস্টিটিউটের শিক্ষক সৈয়দ সাইফুল কবীর ভাস্কর্যটির নকশায় করেন। [১৬] ভাস্কর্যটিতে ৪টি পাখির প্রতীকী নির্মাণে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে বাঙালির ছয় দফা ও স্বাধীনতা আন্দোলনের ক্রমধারা এবং পাখির ডানায় ২১টি পাথরের টুকরায় লিপিবদ্ধ হয়েছে বায়ান্নর ভাষা আন্দোলনের সমৃতি। ভাস্কর্টির মূল ভিত্তি রচিত হয়েছে বাংলাদেশের জাতীয় ফুল

শাপলার ওপর।২৫ মার্চ, ২০১০ সালে বিশ্ববিদ্যালয়ের তৎকালীন উপাচার্য আবু ইউসুফ, ও উপউপাচার্য মোহাম্মদ আলাউদ্দিন এটি উদ্ভোধন করেন।

#

আবাসিক হলসমূহ

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমানে সর্বমোট ১২টি আবাসিক হল রয়েছে যার মধ্যে ৭টি ছাত্র হল ও ৩টি ছাত্রী হল এবং ২টি নির্মানাধীন ছাত্র ও ছাত্রী হল। এছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয়ে ১টি হোস্টেল রয়েছে।

#ক্যাফেটেরিয়া

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র ইউনিয়ন

বিশ্ববিদ্যালয়ে কয়েকটি ক্যাফেটেরিয়া রয়েছে, [১৮] যার মধ্যে

চাকসু ক্যাফেটেরিয়া, আইটি ক্যাফেটেরিয়া অন্যতম।

#মেডিকেল সেন্টার

বিশ্ববিদ্যালয়েরর আইন অনুষদের কাছেই চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় মেডিকেল সেন্টার অবস্থিত। এটি বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও কর্মচারীদের জন্য বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা প্রদানের এবং প্যাথলজিক্যাল পরীক্ষা গ্রহণের জন্য কাজ করে থাকে। পাশাপাশি এখানে শিক্ষক ও কর্মচারীদের পরিবারের সদস্যদের জন্যও বিনামূল্যে বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হয়। এই মেডিকেল সেন্টারে সপ্তাহের প্রতিদিন সার্বক্ষণিক সেবা প্রদানের ব্যবস্থা রয়েছে, যেখানে চিকিৎসকগণ পালা করে চিকিৎসা সেবা প্রদান করে থাকেন। এই সেন্টারে ১১ জন চিকিৎসক ও ৪ টি অ্যাম্বুলেন্স রয়েছে। এছাড়াও মেডিকেল সেন্টার প্রাঙ্গনে ৬ টি অস্থায়ী বিছানার ব্যবস্থা রয়েছে।

#প্রাকৃতিক সৌন্দর্য

কলা ও মানববিদ্যা অনুষদের পেছনে পাহাড়ের ঝরনা চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ক্যম্পাস প্রাকৃতিক সৌর্ন্দের বাড়িয়ে দেয়। বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গন জুড়ে রয়েছে আঁকাবাঁকা পথ, পাহাড়ী পথ, বিভিন্ন প্রজাতির গাছ এবং বন্য প্রাণী। প্রায়ই বিশ্ববিদ্যালয়ের কাটা পাহাড়, বাণিজ্য অনুষদের পেছনে, ফরেস্ট্রি একালাসহ অন্যান্য প্রাকৃতিক পরিবেশে ছোট আকারের লালচে বাদামী পিঙ্গল রংয়ের মায়া হরিণ দেখা যায়। এইসব মায়া হরিণগুলো খর্বকায় ও লাজুক স্বভাবের। তবে এই হরিণের প্রকৃত সংখ্যা কত তা জানাে নেই। এছাড়াও কলা ও মানববিদ্যা অনুষদের পেছনে রয়েছে দৃষ্টিনন্দন পাহাড়ি ঝরনা।

#চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুষদসমূহ

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে বর্তমানে ৭টি অনুষদে ৫২টি বিভাগ রয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুষদ এবং অন্তর্গত বিভাগসমূহ হলো:

কলা ও মানববিদ্যা অনুষদ

জীব বিজ্ঞান অনুষদ

ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদ

ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদ

আইন অনুষদ

বিজ্ঞান অনুষদ

সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদ

#ইনস্টিটিউটসমূহ

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে বর্তমানে ৬টি ইনস্টিটিউট রয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনস্টিটিউট গুলো হলো: []

আধুনিক ভাষা ইনস্টিটিউট

ইনস্টিটিউট অব এডুকেশান, রিসার্স এ্যন্ড ট্রেনিং

চারুকলা ইনস্টিটিউট

ইনস্টিটিউট অব ফরেষ্ট্রি এন্ড এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্সেস

ইনস্টিটিউট অব মেরিন সায়েন্সেস অ্যান্ড ফিশারিশ

সোশ্যাল সায়েন্স রিসার্চ ইনস্টিটিউট

গবেষণা কেন্দ্রসমূহ

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে বর্তমানে ৫টি গবেষণা কেন্দ্র রয়েছে। সেগুলো হলো:

১।ইনস্টিটিউট অব এডুকেশান, রিসার্স এ্যন্ড ট্রেনিং

২।নজরুল গবেষণা কেন্দ্র

৩।ব্যুরো অব বিজনেস রিসার্চ

৪।গণিত ও ভৌত বিজ্ঞান গবেষণা কেন্দ্র

৫।সোশ্যাল সায়েন্স রিসার্চ ইনস্টিটিউট

#অধিভুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহ

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিনে বর্তমানে ২১টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান রয়েছে।

#চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় গ্রন্থাগার

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার চট্টগ্রামের সর্ববৃহৎ গ্রন্থাগার যা দেশের সবচেয়ে সমৃদ্ধ গ্রন্থাগারগুলোর মধ্যে অন্যতম। এই গ্রন্থাগারে বর্তমান সংগ্রহ সংখ্যা প্রায় ৩.৫ লক্ষ [২৮] যার মধ্যে রয়েছে বিরল বই, জার্নাল, অডিওভিজ্যুয়াল উপাদান, পান্ডুলিপি এবং অন্ধদের জন্য ব্রেইল বই। [][২৯] ১৯৬৬ সালের নভেম্বরে বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্বোবধনের সাথে এই গ্রন্থাগারের যাত্রা শুরু হয় মাত্র ৩০০ বই নিয়ে।[২৯] লাইব্রেরি বর্তমান ভবনে স্থানান্তরিত হয় ১৯৯০ সালের নভেম্বরে। তিনতলা বিশিষ্ট গ্রন্থাগারটিতে শিক্ষার্থী, গবেষক এবং শিক্ষকদের জন্য পৃথক কক্ষ রয়েছে। গ্রন্থাগার ভবনে একটি মিলনায়তনও রয়েছে। গ্রন্থাগারে ফটোকপির ব্যবস্থা রয়েছে। গ্রন্থাগারটিতে প্রতিদিন জাতীয় ও আঞ্চলিক পত্রিকা পড়ার ব্যবস্থাও রয়েছে। গ্রন্থাগারটিকে বর্তমানে অটোমেশনের আওতায় আনা হয়েছে।

#উপাচার্যবৃন্দ

ট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার পরবর্তী এ যাবৎকাল পর্যন্ত মোট ১৭ জন উপাচার্য দায়িত্ব পালন করেছেন। ট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান উপাচার্য অধ্যাপক ডক্টর ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী ।

প্রথম উপাচার্য

আজিজুর রহমান মল্লিক

বর্তমান উপাচার্য

ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী।

#প্রকাশনা

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় জার্নাল বিশ্ববিদ্যালয়ের যে কোন গবেষণাপত্র প্রকাশের উন্মুক্ত সাধারণ মাধ্যম। পূর্বে এর নাম ছিল চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় স্টাডিজ । আলাদা পৃথক অনুষদ জন্য এর সাথে প্রত্যয়রূপে অনুষদের নাম যুক্ত হয়। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের জার্নাল অব আর্টস, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের জার্নাল অব সোশ্যাল সায়েন্স, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের জার্নাল অব বিজনেস এবং চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের জার্নাল অব ল দুই বছর অন্তর প্রকাশিত হয়। [৪১] এছাড়াও বাংলা বিভাগ থেকে পান্ডুলিপি, ইতিহাস বিভাগ থেকে ইতিহাস পত্রিকা এবং অর্থনীতি বিভাগ থেকে ইকনমিক ইকো পত্রিকা প্রকাশিত হয়। []

#যাতায়াত

বিশ্ববিদ্যালয় শাটল ট্রেন

বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকদের যাতায়াতের জন্য রয়েছে বাস এবং মাইক্রোবাসের ব্যবস্থা।

বিশ্ববিদ্যালয় শাটল ট্রেন

বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের যাতায়াতের জন্য ১০টি বগি বিশিষ্ট দুইটি শাটল ট্রেনের ব্যবস্থা রয়েছে। [] ট্রেনগুলো বটতলি রেলওয়ে স্টেশন থেকে

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় রেলওয়ে স্টেশন এবং চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় রেলওয়ে স্টেশন থেকে বটতলি রেলওয়ে স্টেশন পর্যন্ত নির্ধারিত সময়সূচী অনুযায়ী যাতায়াত করে। ১৯৮০ সালে বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের একমাত্র বাহন হিসেবে শাটল ট্রেনের প্রথম যাত্রা শুরু হয়। প্রতিদিন প্রায় ৯ থেকে ১০ হাজার শিক্ষার্থী শাটল ট্রেনে যাতায়াত করে থাকে। বর্তমানে দুইটি ট্রেন দৈনিক সাতবার ক্যাম্পাস থেকে ষোলশহর এবং ষোলশহর থেকে ক্যাম্পাস পর্যন্ত যাতায়াত করে থাকে।

আপনাদের সবাইকে স্বাগতম পাহাড়পর্বতময় এই বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গণে। সকলের জন্য অশুভকামনা ও আসার আমন্ত্রণ রইলো।

ওয়েবসাইট www.cu.ac.bd

Want new articles before they get published?
Subscribe to our Awesome Newsletter.

12

September, 2018

University Review

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়

১৯৫৩ সালের ৬ এপ্রিল যাত্রা শুরু করা ৭৫৩ একরের এই বিশাল সবুজ ক্যাম্পাসটি বাংলাদেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে পরিচিত। অস্ট্রেলিয়ান স্থপতি ডঃ সোনানি টমাসের পরিকল্পনায় নির্মিত এই ক্যাম্পাসটি যেমন পরিপাটি তেমনই সুন্দর। বর্তমানে এই বিশ্ববিদ্যালয়ে বিভাগ আছে প্রায় ৬০টির কাছাকাছি এবং শিক্ষার্থী আছে প্রায় ৩৫০০০। তবে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার জন্য পোড়াতে হয়েছিল অনেক কাঠ খড়।
দেশ ভাগের পূর্বে অর্থাৎ ইংরেজ শাসনামলে বর্তমান উত্তরবঙ্গে শিক্ষা ব্যবস্থার তেমন প্রসার না থাকায় ১৮৭৩ সালে প্রতিষ্ঠা করা হয় রাজশাহী কলেজ। কিন্তু বছরখানিক পর তা বন্ধ হয়ে যায়। ১৯৪৭ সালে দেশ ভাগের পর যখন সব কলেজ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আওতাভুক্ত করা হয় তখন রাজশাহীতে একটি পূর্ণাঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করার জন্য জনমত গড়ে ওঠে।
১৯৫০ সালে ৬৪ সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়। ১৯৫২ সালের ১০ এবং ১৩ ফেব্রুয়ারী এই কমিটি দুটি সভা কর। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার এই আন্দোলন এতটাই তীব্র আকার ধারন করে যে ১৫জনেকে সে সময় কারাবরণ করতে হয়। এরপর ১৯৫৩ সালের এক জনসভায় পূর্ববঙ্গীয় আইনসভার সদস্য প্রখ্যাত আইনজীবী জনাব মাদার বখশ , বিশ্ববিদ্যালয় তৈরী না হলে রাজশাহীকে আলাদা প্রদেশ ঘোষনার হুমকি দেন। তার এই হুমকি কাজে আসে। যার ফলশ্রুতিতে ১৯৫৩ সালের ৩১ মার্চ প্রাদেশিক আইন সভায় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা আইন পাশ হয়। এবং একই বছর ৬ এপ্রিল থেকে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় তার যাত্রা শুরু করে।
প্রথমদিকে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লাশ শুরু হয় রাজশাহী কলেজে।প্রশানিক কাজ চলে পাশের রেশম কুঠিতে। ১৯৫৬ সালে মতিহারে বিশ্ববিদ্যালয়টির নিজস্ব ক্যাম্পাস তৈরীর কাজ শুরু হয় এবং ১৯৬৪ নাগাদ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় তার নিজস্ব ক্যাম্পাসে সম্পুর্ণভাবে নিজেদের কার্যক্রম শুরু করে।
বিশ্ববিদ্যালয়টি যেমন তৈরী হয়েছিল এক আন্দোলনের মাধ্যমে, তেমনি দেশের স্বাধীনা যুদ্ধে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূমিকা ছিল উল্লেখযোগ্য। যার প্রমাণ হয়ে আছেন শহীদ শামসুজ্জোহা,শহীদ সুখরঞ্জন সমাদ্দার,শহীদ হবীবুর রহমান স্যারদের মত শহীদ বুদ্ধিজীবীরা।

এই বিশাল ক্যাম্পাসে রয়েছে ৫টি উচ্চতর গবেষণা ইন্সটিটিউট, ৫টি অনুষদের অধীনে প্রায় ৬০টি বিভাগ। এই সব বিভাগের শিক্ষা কার্যক্রমের জন্য রয়েছে ১০টির মত একাডেমিক ভবন। চমৎকারভাবে সাজানো এই ক্যাম্পাসে এক দিকে রয়েছে প্রথম,দ্বিতীয়,তৃ্তীয় ও চতুর্থ নামের চারটি বিজ্ঞান ভবন। অন্যদিকে রয়েছে রবীন্দ্র ভবন, মমতাজ উদ্দীন কলা ভবন,শহীদুল্লাহ কলা ভবন এবং সৈয়দ ইসমাইল হোসেন সিরাজী ভবন নামের চারটি একাডেমিক ভবন যা ব্যবহৃত হয় মানবিক এবং বানিজ্য বিষয়ক বিভাগের শিক্ষাকার্যক্রমে। এছাড়াও কৃষি অনুষদ ও চারুকলার জন্য হয়েছে আলাদা আলাদা ভবন সম্বলিত ক্যাম্পাস যা মূল ক্যাম্পাসের সাথেই লাগোয়া। আইবিএ এর জন্য রয়েছে তাদের নিজস্ব ভবন এবং ক্যাম্পাস। বলাবাহুল্য, কৃষি অনুষদের ব্যবহারিক এবং গবেষণার জন্য রয়েছে নাড়িকেলবাড়িয়া নামক আরেকটি ক্যাম্পাস।।
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে রয়েছে রাজশাহী,বগুড়া,রংপুর মেডিকেল কলেজ সহ আরো বেশ কিছু স্কুল কলেজ,যার কিছু কিছু এই ক্যাম্পাসের ভেতরেই অবস্থিত।
দুইটি প্রাসাশনিক ভবন দাঁড়িয়ে আছে ঠিক প্রধান ফটকের সামনে। তার পাশেই বিশাল কেন্দ্রীয় মসজিদ।মসজিদের সামনেই স্মৃতিসৌধ। একদিকে সিনেট ভবন আর ডীনস কমপ্লেক্স।
ক্যাম্পাসের উত্তর পূর্ব দিক জুড়ে রয়েছে ছাত্রদের জন্য ১১টি আবাসিক হল ৷প্রতিটি হলের সামনেই আছে বিশাল মাঠ ও পুকুর। ছাত্রীদের জন্য রয়েছে ৬টি আবাসিক হল যা ক্যাম্পাসের পশ্চিম প্রান্তে অবস্থিত৷ এছাড়াও গবেষক ও বিদেশী ছাত্রছাত্রীদের জন্য একটি আন্তর্জাতিক মানের ডরমেটরি রয়েছে। যার নাম শহীদ মীর কাইয়ুম হোসেন ইন্টারন্যাশনাল ডরমেটরি। পূর্ব ও পশ্চিম প্রান্ত জুড়ে রয়েছে শিক্ষক ও কর্মকর্তার-কর্মচারীদের জন্য আবাসিক এলাকা৷
বাংলাদেশে একমাত্র রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়েই আছে নিজস্ব পূর্ণাঙ্গ স্টেডিয়াম। এছাড়াও রয়েছে নিজস্ব সুইমিংপুল,ইন্ডোর স্টেডিয়াম ও জিমনেশিয়াম, মন্দির,মেডিকেল সেন্টার,বিজ্ঞান ও প্রেস ভবন,ক্যাফেটেরিয়া, বিশাল তিনতলা বিশিষ্ট লাইব্রেরী, প্রায় তিন হাজার আসন ক্ষমতা সম্পন্ন কাজী নজরুল ইসলাম অডিটরিয়াম, শহীদ সুখরঞ্জন সমাদ্দার ছাত্র শিক্ষক মিলনায়তন, নিজস্ব ওয়ার্কশপ এবং বাস স্টেশন, বিএনসিসি ভবন, মুক্তিযুদ্ধ সংগ্রহশালা,প্রথম উপাচার্য স্যার জুবেরীর নামে আছে একটি বিশাল গেস্ট হাউজ এবং অগণিত গবেষনা ইন্সটিটিউট।
আর আছে বিখ্যাত প্যারিস রোড। যার বিশাল প্রশস্ত রাস্তার দুইধারে আকাশছোয়া গগণ শিরিশ গাছ। রয়েছে আম ও লিচু বাগান। মুক্তিযুদ্ধের ভয়াবহতার সাক্ষী হয়ে আছে বদ্ধভূমি,সাবাশ বাংলা স্ফুলিঙ্গের মত মনুমেন্ট,লোকাল ট্রেনের জন্য একটি স্টেশন।
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পড়াশুনে করেছেন বাংলাদশের অনেক অনেক নামী দামী ব্যক্তিবর্গ। যেমনঃ নাট্যকার মলয় ভৌমিক, গণিতবিদ সুব্রত মজুমদার, অভিনেত্রী[ শর্মিলী আহমেদ, সংগীত শিল্পী এন্ড্রু কিশোর, কথা সাহিত্যিক হাসান আজিজুল হক, ক্রিকেটার আল আমীন হোসেন,প্রফেসর এমিরেটাস অরুণ কুমার বসাক স্যার,একুশে পদক ও বাংলা একাডেমী পুরস্কার বিজয়ী সনৎ কুমার সাহা, কবি মহাদেব সাহা, বিচারক কৃষ্ণা দেবনাথ সহ আরো অনেকেই।
পূর্বে সূর্য্য উঠে আলো ছড়ায় মতিহারের সবুজ চত্বরে। গগণ সিরিশের পাতার ফাক গলে রোদ এসে পরে প্যারিস রোডে। কর্মব্যাস্ততা শুরু হয় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে। টুকিটাকি চত্বর, ওয়ালস্ট্রীট,জুরাসিক চত্বর কিংবা শহীদুল্লাহ আর মমতাজের আম বাগান মুখরিত হয় ছাত্রছাত্রীদের কোলাহলে। দুপুরের অলস ক্যাম্পাসে সক্রিয় হয়ে ওঠে গান, নাচ, নাটক,বিতর্ক সহ সব ধরনের সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলো।শেখ রাসেল,পুকুর পাড়,আম বাগানগুলো সাক্ষী হয়ে থাকে নানান ভবিষ্যৎ স্বপ্নের। এভাবেই কর্ম্ব্যস্ততার মাঝে ঢলে পরে সুর্য।গোধুলীর আগে জুবেরী, সাবাশ বাংলা, হবিবুরের মাঠগুলো ক্লান্ত দাপুটে ছেলে গুলোর জন্য মমতাময়ীর রূপ নেয়। ধীরে ধীরে রাত বাড়ার সাথে সাথে যে যার নীড়ে ফিরে। বাংলাদেশের বুকে মাথা উচু করে স্বগৌরবে বিশাল এক ক্যাম্পাস আর ইতিহাস নিয়ে ঠায় দাঁড়িয়ে থাকে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়।
Want new articles before they get published?
Subscribe to our Awesome Newsletter.

Share This